সুন্দরগঞ্জে বিরোধপূর্ণ ধানের জমিতে প্রতিপক্ষের পরিকল্পিতভাবে পাতিয়ে রাখা বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে নারীসহ নিহত-২, আহত-৩, আটক-৮

এ.কে.এম. শামছুল হক, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ]
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার পূর্ব ঝিনিয়া গ্রামের বিরোধপূর্ণ ধানের জমিতে প্রতিপক্ষের পরিকল্পিতভাবে পাতিয়ে রাখা বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে নারীসহ ২ জন নিহত ও ৩ জন আহত হয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকায় নারীসহ ৮ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
জানা গেছে, পূর্ব ঝিনিয়া গ্রামের মফিজল হকের ছেলে তসলিম উদ্দিনের সাথে প্রতিবেশি আবুল শেখের ছেলে হযরত আলীর দীর্ঘদিন থেকে ৮০ শতক জনি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ওই জমির মালিকানা নিয়ে মোকদ্দমা হলে তসলিম উদ্দিন ডিক্রী পেয়ে জমিতে আমন ধান রোপন করেন। এরই জের ধরে হযরত আলী বিরোধপূর্ণ জমির আধা-পাকা ধান ক্ষেতে চতুরপাশের্^ নিজের রাইচ মিল থেকে অসংখ্য জিআই তার দিয়ে পরিকল্পিতভাবে ক্ষেতে বিদ্যুতের সংযোগ ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখেন। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৬টার সময় তসলিম উদ্দিন কিছু  সংখ্যক নারী-পুরুষ শ্রমিক নিয়ে ওই জমির ধান কাটার জন্য নামামাত্র বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে গেলে ঘটনাস্থলেই নারীসহ ২ জন নিহত ও ৩ জন আহত হয়। নিহতরা হলেন, তসলিম উদ্দিন (৩৫) ও মর্জিনা খাতুন (২৫)। আহতরা হলেন- মেহের আলী ভোলার ছেলে শহিদুল হক, এনামুল হকের স্ত্রী মর্জিনা ও তসলিমের স্ত্রী জমিলা খাতুন। আহতদের গুরুত্বর অসুস্থ্য অবস্থায় সুন্দরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকায় নারীসহ ৮ জনকে আটক করেন। আটককৃতরা হলেন আবুল হোসেনের পুত্র পরিকল্পনাকারী হযরত আলী, হাবিজার রহমান, আজিজল হক, মৃত- বজর আলীর ছেলে আবুল হোসেন, হযরত আলীর স্ত্রী গোলেনুর, আবুল হোসেনের স্ত্রী জরিনা বেগম, মোজাহার আলীর স্ত্রী আকলিমা বেগম ও হাবিজার রহমানের স্ত্রী মোর্শেদা আক্তার। ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজিত শত-শত নারী-পুরুষকে সামাল দিতে পুলিশ হিম-শিম খাচ্ছেন। স্থানীয় চেয়ারম্যান গোলাম কবির মুকুল উত্তেজিত লোকজনদের শান্ত থাকার আহবান জানিয়েছেন। থানা অফিসার ইনচার্জ আতিয়ার রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানান, দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনা হবে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *