দুর্গাপুরে আমন বীজের সংকট

নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা): দুর্গাপুরে ১টি পৌরসভাসহ ৭টি ইউনিয়নে গত আগষ্ট মাসের বন্যার পর নতুন বন্যা দেখা দেয়ায় রোপা আমন ধানের চারা সংকট দেখা দিয়েছে। বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, বিগত মে ও আগষ্ট মাসে দু’দফা বন্যা হয়ে যাওয়ায় দুর্গাপুরে প্রায় ৩০ হাজার হেক্টর জমির ধান ও বীজতলা দু’বারই ডুবে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় কৃষকের খাদ্য সংকট দেখা দেয়ার পাশাপাশি রোপা ও আমন ধানের বীজেরও চরম সংকট দেখা দিয়েছে। একাধিক কৃষক জানান, তারা বাইরের বিভিন্ন স্থান থেকে বীজ ও চারা এনে জমি আবাদের চেষ্টা করলেও এখনো তাদের প্রায় অর্ধেক জমিই অনাবাদি রয়ে গেছে। গোপালপুর গ্রামের আদিবাসী কৃষক রুকিনি হাজং বলেন, ‘মলা তগে রিলিফ না চায়, জুমি লাগিবো বীজ কুবায় পায়’।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ওমর ফারুক বলেন, স্থানীয় কৃষকগন বিভিন্ন এলাকা থেকে রোপা আমন ধানের চারা ও বীজ সংগ্রহ করে জমি আবাদের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আমরা তাদের পাশে থেকে সমস্ত জমি আবাদ করার অনুপ্রেরনা ও সহযোগীতা দিচ্ছি। এবার উপজেলায় ১৭ হাজার ১শ ২০ হেক্টর জমিতে আমন আবাদের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে। তন্মধ্যে, প্রায় ১২ হাজার হেক্টর জমি আবাদ হয়ে গেছে।

নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)

দুর্গাপুরে ১টি পৌরসভাসহ ৭টি ইউনিয়নে গত আগষ্ট মাসের বন্যার পর নতুন বন্যা দেখা দেয়ায় রোপা আমন ধানের চারা সংকট দেখা দিয়েছে।

বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, বিগত মে ও আগষ্ট মাসে দু’দফা বন্যা হয়ে যাওয়ায় দুর্গাপুরে প্রায় ৩০ হাজার হেক্টর জমির ধান ও বীজতলা দু’বারই ডুবে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় কৃষকের খাদ্য সংকট দেখা দেয়ার পাশাপাশি রোপা ও আমন ধানের বীজেরও চরম সংকট দেখা দিয়েছে। একাধিক কৃষক জানান, তারা বাইরের বিভিন্ন স্থান থেকে বীজ ও চারা এনে জমি আবাদের চেষ্টা করলেও এখনো তাদের প্রায় অর্ধেক জমিই অনাবাদি রয়ে গেছে। গোপালপুর গ্রামের আদিবাসী কৃষক রুকিনি হাজং বলেন, ‘মলা তগে রিলিফ না চায়, জুমি লাগিবো বীজ কুবায় পায়’।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ওমর ফারুক বলেন, স্থানীয় কৃষকগন বিভিন্ন এলাকা থেকে রোপা আমন ধানের চারা ও বীজ সংগ্রহ করে জমি আবাদের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আমরা তাদের পাশে থেকে সমস্ত জমি আবাদ করার অনুপ্রেরনা ও সহযোগীতা দিচ্ছি। এবার উপজেলায় ১৭ হাজার ১শ ২০ হেক্টর জমিতে আমন আবাদের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে। তন্মধ্যে, প্রায় ১২ হাজার হেক্টর জমি আবাদ হয়ে গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *