শ্রীপুরে সরকারী খালে পিলার দিয়ে দখলের প্রস্তুতি

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি :
শ্রীপুর পৌর এলাকার পানি নিষ্কাশনের একমাত্র ভরসা সরকারী বৈরাগীরচালা খাল। ইতিমধ্যেই এই খালটি শিল্পায়নের ঝুঁকিতে প্রশস্থতা কমতে কমতে সরু হয়ে কোথাও কোথাও নালায় পরিণত হয়ে পড়েছে। এর পরও প্রায় অর্ধশত কারখানার বিষাক্ত পানি ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার একমাত্র মাধ্যম এই খালটি।

নানা কারণে সরকারী এই খালটি অস্তিত্ব সংকটে ভোগলেও এখন স্থানীয়দের দখলে বিলীণ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে স্থানীয় ইসলাম উদ্দিন নামের এক ব্যক্তি খালটির একাংশ দখলের প্রস্তুতি শুরু করেছেন। ইতিমধ্যেই তিনি সরকারী এই খালের শ্রীপুর-মাষ্টারবাড়ি সড়কের আমান কটনের সংলগ্ন স্থানে স্থায়ী পিলার নির্মাণ করেছেন। এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। অভিযুক্ত ইসলাম উদ্দিন কেওয়া গ্রামের আব্দুল হাকিমের ছেলে।

স্থানীরা জানান, সরকারী এই খাল যেভাবে দখল হচ্ছে, তা সবার জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। এই খালটি দখল হয়ে এলাকার পানি নিষ্কাশণ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেলে ডুবে যাবে পুরো পৌর এলাকা। তাই আমাদের সবার দাবী সরকারী এই খালের দখলযজ্ঞ বন্ধ করতে হবে।

স্থানীয় রফিকুল ইসলাম জানান, খালের ব্রিজের উপর একপাশে সীমানা প্রাচীর তৈরী করা হয়েছে, অন্য পাশে দখলের প্রস্তুতি চলছে। এভাবে সরকারী খাল দখল হয়ে গেলে সবার জন্যই তা ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

খাল দখলের বিষয়ে অভিযুক্ত ইসলাম উদ্দিন জানান, খালের পাশেই আমার জমি, সেখানে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করব। তাই সীমানা প্রাচীরের সহযোগিতায় খালের মধ্যে পিলারগুলো স্থাপন করা হয়েছে। অন্য কোন উদ্দেশ্য নেই।

শ্রীপুর পৌর ভূমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন পালোয়ান বলেন, সরকারী খাল দখল বা পানি প্রবাহ বন্ধের কোন সুযোগ নেই। আমি সরেজমিনে গিয়ে খাল দখল বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেহেনা আকতার জানান, এবিষয়ে আমি অবহিত ছিলাম না তবে আমি খোঁজ নিয়ে খুব দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

374 total views, 3 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.