ভেষজ উদ্ভিদ তুলসি

ছবি ও লেখা ঃ মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী
তুলসি ভেষজ উদ্ভিদ। ছোট-বড় সবারই চেনা। এর ভেষজ গুণাগুণ সম্পর্কে ধারণা রয়েছে অনেক মানুষের। তাছাড়া বৈজ্ঞানিক গবেষণায় তুলসি এন্টিভাইরাস বলে প্রমাণিত। আমাদের দেশের প্রায় বাসা-বাড়িতে এর দেখা মিলে এবং দেশের প্রায় সর্বত্রই তুলসি জন্মে। তাছাড়া বসত বাড়িতে রোপণের উপযোগী আদর্শ উদ্ভিদ তুলসি। হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষজনের বাড়ির জন্যে অপরিহার্য উদ্ভিদ তুলসি। কেননা তারা তাকে পবিত্রতার প্রতিক হিসেবে জানেন এবং পুজায় ব্যবহৃত হয়। ইংরেজি নাম ঃ ঐড়ষু ইধংরষ ড়ৎ ঝধপৎবফ ইধংরষ। পরিবার ঃ খধসরধপবধব। উদ্ভিদ তাত্বিক নাম ঃ ঙপরসঁস ংধহপঃঁস খরহহ। এর আদিনিবাস ভারত,মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশ। তুলসি সুগন্ধীযুক্ত চিরহরিৎ গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ। গাছের উচ্চতা গড়ে ২ থেকে ৩ ফুট। এর কান্ড কাষ্ঠল ও সরল। শাখা-প্রশাখা অধিক,যা বিপরিত বিন্যস্ত ও খাড়া। পাতা সুগন্ধী,সরল,কিনারা খাঁজ কাটা। পাতা ও বিটপ রোঁয়ায় ভর্তি। এর ফুল আকাওে ক্ষুদ্র,রং হাল্কা বেগুনি বা ফিকে লাল। ফুল ফোটার মৌসুম শরৎ ও হেমন্তকাল। ফল ও বীজও আকারে ক্ষুদ্র। ফলের ভেতর থাকে বীজ। বীজের গঠন চ্যাপ্টা,রং ফিকে হলুদ বা হাল্কা লাল। আমাদের দেশে চার প্রকারের তুলসি চোখে পড়ে। তা হলো- বাবুই তুলসি,শে^ত তুলসি,কৃষ্ণ তুলসি ও বন তুলসি। রৌদ্রউজ্জল সুনিস্কাশিত উঁচু থেকে মাঝারি উঁচু ভূমি ও দো-আঁশ থেকে বেলে দো-আঁশ মাটি তুলসি গাছ উৎপাদনের উপযোগী। তবে আংশিক ছায়াযুক্ত স্থানেও তুলসি গাছ জন্মে। সাধারণত বীজের মাধ্যমে এর বংশ বিস্তার করা হয়। চাষের জন্য পরিপক্ক ফল থেকে বীজ সংগ্রহ করে তা রোদে শুকিয়ে সংরক্ষণ করতে হবে। জমিতে বীজ বপণের পূর্বে পানিতে ৬ ঘন্টা ভিজিয়ে নিয়ে ছেকে বাতাসে শুকিয়ে বপন করতে হবে। গ্রীষ্মের শুরু অথ্যাৎ বৈশাখ-জৈষ্ঠ্য মাস তুলসির বীজ বপনের উত্তম সময়। তুলসি গাছে প্রয়োজনে সেচ দিতে হয় এবং পানি নিকাশের ব্যবস্থা রাখতে হবে। সরাসরি মাটি ও টবে রোপণ উপযোগী উদ্ভিদ। ভেষজ গুণাগুণে ভরপুর তুলসির রয়েছে নানান রকম গুণ-এর পাতা,বীজ ও শিকড় ভেষজ গুণাগুণ সম্পন্ন। তুলসি পাতা পানিতে ভিজিয়ে রাখলে পানি দূষণমুক্ত হয় ও পরিশুদ্ধ থাকে। জ¦র,সর্দি, কাশি ও কৃমি দূর করে। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। তুলসির বীজ ভিজিয়ে রেখে সে পানি প্রত্যহ সকালে খেলে প্র¯্রাবের জ¦ালা কমায়। হামের দাগ,বসন্তের দাগ তুলতে তুলসির রস বেশ উপকারী। পোকামাকড়ের কামড়ে ক্ষতস্থান সারাতে ও ব্যথা সারাতে উপকারী। শরিরের ওজন কমাতে সাহায্য করে। ক্যান্সার নিরাময় করে। কিডনির পাথর দূর করে।

3,151 total views, 3 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.