সুগন্ধী ফুল গন্ধরাজ

লেখা ও ছবি : মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী
গন্ধরাজ সুগন্ধে সেরা তাইতো গন্ধরাজ। ফুলের সুমিষ্ট ঘ্রাণ যে কাউকে কাছে টানে। তাছাড়া আমাদের দেশের প্রায় সকল মানুষের কাছে অতি পরিচিত ফুল গন্ধরাজ । এর আদিনিবাস চীন। পরিবার ঃ জঁনরধপবধব,ইংরেজী নাম ঃ এধৎফবহরধ,উদ্ভিদ তাত্বিক নাম ঃ এধৎফবহরধ লধংসরহড়রফবং। গন্ধরাজ মাঝারি আকার-আকৃতির উচ্চতা সম্পন্ন চীর সবুজ ও গুল্ম জাতীয় ফুল গাছ। তাছাড়া গাছের উচ্চতা ছাঁটাই প্রকৃয়ার মাধ্যমে ছোট-বড় করে রাখা যায়। গাছের পাতা বেশ পুরু,গাঢ় সবুজ,মধ্যশিরা স্পষ্ট,আকারে বর্শাকৃতির। ডাল কাটিং পদ্ধতির মাধ্যমে এর বংশ বিস্তার করা হয়ে থাকে। সরাসরি মাটি ও টবে রোপণ উপযোগী ফুল গাছ। বসন্তের শেষ দিকে এর ফুল ফোটা শুরু হয় এবং ব্যাপ্তী পুরু গ্রীষ্মকাল জুড়ে। গাছের প্রায় প্রতি শাখা-প্রশাখার অগ্রভাগে ফুল ধরে। ফুল আকার-আকৃতিতে অনেকটাই গোলাপের মতো। রং দুধ সাদা। নমনীয় কোমল অসংখ্য পাপড়ির সমন্বয়ে সৃষ্ট গন্ধরাজ ফুল। ফুলের মাঝের অংশে হলুদ রঙের পরাগ অবস্থিত। এর ফুল ফোটে রাতের বেলা আর তাই রাতের বেলা ও ভোর বেলা বাগানের চারিপাশ ফুলের সুগন্ধে মাতোয়ারা করে রাখে। ফুল ফোটার সময়টাতে গাছে বিভিন্ন পতঙ্গের আনাগোনা লক্ষ্য করা যায়। ফুল ফুটন্ত গাছের সৌন্দর্য বেশ মনোমুগ্ধকর। সরাসরি মাটি ও টবে রোপণ উপযোগী ফুল গাছ। আমাদের দেশের প্রায় বাসা-বাড়ি,বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বাগান,পার্ক ও উদ্যানে গন্ধরাজ ফুল গাছ চোখে পড়ে। এ ছাড়া অনেক স্থানে বাসা-বাড়ির সীমানাতে জীবন্ত বেড়া ও বাহারি উদ্ভিদ হিসেবে সৌন্ধর্য বৃদ্ধিও জন্যে অনেকে গন্ধরাজ ফুল গাছ রোপণ করে থাকেন। রোপণকৃত গাছ বেশ বাহারি। গন্ধরাজ গাছের কান্ড ও শাখা-প্রশাখা বেশ শক্ত মানের। তাছাড়া গন্ধরাজ বেশ কষ্ট সহনশীল ফুল গাছ। এর ফুলের নির্যাস থেকে মূল্যবান সুগন্ধী প্রস্তুত করা হয়। রৌদ্রউজ্জল পরিবেশ ও উঁচু থেকে মাঝারি উঁচু ভূমি এবং প্রায় সব ধরনের মাটিতে গন্ধরাজ ফুল গাছ উৎপাদিত হয়।

2,840 total views, 20 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.