আমরণ অনশনে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা

এক মাস তিন দিনের অবস্থান কর্মসূচির মাথায় এবার আমরণ অনশন শুরু করেছেন ‘ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা’। চার দফা দাবি পূরণে আওয়ামী লীগ কিংবা ছাত্রলীগের দায়িত্বশীল পর্যায় থেকে কোনো আশ্বাস না পেয়ে তাদের নতুন এই কর্মসূচি।

আজ শুক্রবার বেলা দুইটা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে তাঁরা আমরণ অনশনে বসেন। তাঁরা বলছেন, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে দাবি মানতে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছিলেন ছাত্রলীগের কমিটিতে পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া অংশের সদস্যরা। তবে এই সময়ের মধ্যে দাবির পক্ষে কোনো আশ্বাস না মেলায় আজ তাঁরা আমরণ অনশন কর্মসূচি শুরু করেন।

তাঁদের চার দফা দাবি হলো, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ, পদ শূন্য ঘোষিত ছাত্রলীগের কমিটির ১৯ জনের পদসহ নাম প্রকাশ, বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে পদবঞ্চিতদের মধ্য থেকে যোগ্যতার ভিত্তিতে কমিটিতে পদায়ন এবং মধুর ক্যানটিনে (১৩ মে) ও টিএসসিতে (১৯ মে) তাঁদের ওপর হামলার সুষ্ঠু বিচার ৷

আমরণ অনশন কর্মসূচির বিষয়ে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া অংশের মুখপাত্র ছাত্রলীগের সাবেক কর্মসূচি ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক রাকিব হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বা ছাত্রলীগের দায়িত্বশীল কোনো পর্যায় থেকে দাবি পূরণের কোনো আশ্বাস না পাওয়ায় আমরা আমরণ অনশন শুরু করেছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কর্মসূচি চলবে। আমাদের প্রাণের বিনিময়ে যদি ছাত্রলীগ কলঙ্কমুক্ত হয়, তবে তা-ই হোক।’

অনশনে অংশ নেওয়া ছাত্রলীগের বিগত কমিটির উপদপ্তর সম্পাদক শেখ নকিবুল ইসলাম বলেন, আলোচনার দরজা এখনো খোলা আছে। আওয়ামী লীগ কিংবা ছাত্রলীগের দায়িত্বশীলদের আশ্বাসের অপেক্ষায় আছেন তাঁরা। ছাত্রলীগের কমিটিতে পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া অন্তত ৩৫ জন নেতা অনশনে অংশ নেবেন বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.