রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন ২৭ জুলাই

রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি :
আগামী ২৭ জুলাই রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। শুক্রবার (২৮ জুন) সন্ধ্যায় রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি। উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) ইঞ্জিনিয়ার সামশুল ইসলাম তালুকদারের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা ছাদেকুন নূর সিকদার, চট্টগ্রাম উত্তরজেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক স্বজন কুমার তালুকদার, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও রাঙ্গুনিয়া পৌরসভার মেয়র শাহজাহান সিকদার, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আলী শাহ, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য কামরুল ইসলাম চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আবুল কাশেম চিশতি, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ইদ্রিছ আজগর, সদস্য নজরুল ইসলাম তালুকদার, চট্টগ্রাম উত্তরজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, রাঙ্গুনিয়া পৌরসভা আওয়ামীলীগ সভাপতি আসলাম খাঁন প্রমুখ।
সভায় আগামী ২৭ জুলাই শনিবার বিকাল ৩টায় উপজেলার নূরজাহান কমিউনিটি সেন্টার মাঠে অনুষ্ঠিতব্য উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনকে সফল করতে ১১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি খলিলুর রহমান চৌধুরীকে আহবায়ক ও সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) ইঞ্জিনিয়ার সামশুল ইসলাম তালুকদারকে সদস্য সচিব করা হয়। এছাড়াও সম্মেলনকে জাঁকজমকপূর্ণ করতে ৮টি উপকমিটি গঠন করা হয়। এগুলো হলো দপ্তর, প্রচার, অর্ভ্যর্থনা, অর্থ, শৃঙ্খলা, আপ্যায়ন, সাংস্কৃতিক, মঞ্চ ও সাজসজ্জা কমিটি। বর্ধিত সভার শুরুতে রাঙ্গুনিয়ায় গত ৬ মাসে মৃত্যুবরণ করা ১৭০ জন আওয়ামীলীগ নেতার স্মরণে শোক প্রস্তাব আনা হয় এবং তাঁদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।
সভায় ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আওয়ামীলীগ বাংলাদেশের প্রাচীনতম সংগঠন। এই সংগঠনের সাংগঠনিক কাঠামো গতিশীল রাখতে সম্মেলনের বিকল্প নেই। এই সম্মেলন যাতে শৃঙ্খলাপূর্ণ হয় সেই দায়িত্ব সকলের। তাই আগামী রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনকে জাঁকজমকপূর্ণ করতে আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে একযোগে কাজ করতে হবে।’

বাজারে গরুর পঁচা মাংস বিক্রি, অভিযানের খবর পেয়ে বিক্রেতার পলায়ন

রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি
মা মারা গিয়েছে এক মাস হলো, মায়ের জেয়াফতের জন্য দিনমজুর ছেলে হানিফ বাজার থেকে গরুর মাংস কিনে নিয়ে যান। ৭ কেজি গরুর মাংস বাড়িতে নিয়ে দেখেন সব পঁচা মাংস, গন্ধ বের হচ্ছে। তিনি অভিযোগ জানাতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এর কাছে মাংস নিয়ে গেলে তিনি অভিযোগ শুনে মাংস বিক্রেতার দোকানে অভিযান চালাতে যান। অভিযানের খবর পেয়ে পালিয়ে যান মাংস বিক্রেতা। বুধবার (২৭ জুন) রাত ৮ টার দিকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার দক্ষিণ রাজা নগর ইউনিয়নের ধামাইর হাট বাজারে এই ঘটনা ঘটে।
জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মাসুদুর রহমান বলেন, “ দিন মজুরী করে লোকটি। মায়ের জেয়াফতের জন্য ৭ কেজি মাংস কিনেন ক্রেতা মো. হানিফ। পঁচা মাংস নিয়ে তিনি আমার অফিসে আসলে তাৎক্ষনিক বাজারে গিয়ে অভিযান চালায়। অভিযানের আগেই মাংস বিক্রেতা মো. শফি পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় বাজার সমিতির নেতাদের দায়িত্ব দিয়ে মাংস ক্রেতাকে সহযোগিতা করতে বলি।”
দক্ষিণ রাজা নগর ইউনিয়নের শিয়ালবুক্কা গ্রামের মাংস ক্রেতা মো. হানিফ বলেন, “ আমার মা মারা গেল এক মাস হচ্ছে। ধার করে জেয়াফতের আয়োজন করছি। ৩ হাজার ৫ শ টাকা দিয়ে ৭ কেজি মাংস কিনলাম। কেনার পর ওই মাংস বিক্রেতা মো. শফির কাছে মাংস রেখে মসলা কিনতে গেলে মাংসগুলো বদলিয়ে পঁচাবাসি গরুর মাংস থলের ভিতর ঢুকিয়ে দেয়। বাড়িতে গিয়ে দেখলাম সব পঁচা মাংস। ”
জানতে চাইলে ধামাইর হাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. ফজলুল ইসলাম বলেন, “ দিন মজুর হানিফকে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে বিক্রেতা মাংস বিক্রি করেন। কিছুদিন আগেই ওই বিক্রেতা এই রকম একটি ঘটনা ঘটিয়েছে। তার কাছ থেকে মুচলেকাও নেয়া হয় যাতে আর কোনো সময় এই কাজটি না করেন। আজকের ঘটনার পর বিক্রেতা পলাতক থাকায় সমিতির পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছিনা। অচিরেই ব্যবসায়ী সমিতি ওই মাংস বিক্রেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন। মাংস ক্রেতাকে মানবিক কারনে তাৎক্ষনিকভাবে ৩ হাজার ৫ শ টাকা বাজার সমিতির পক্ষ থেকে দিয়ে দেয়া হয়েছে। ”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.