বড়পুকুরিয়ায় শ্রমিকদের ওপর পুলিশের লাঠিচার্জ

প্লাবন শুভ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি :
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর পার্শ্ববর্তী বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে নিয়োগের দাবিতে গতকাল রবিবার দ্বিতীয় দিনের মতো রাজপথের সাথে রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে পুলিশি লাঠিচার্জের মুখে এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন আন্দোলনকারি শ্রমিকরা।
এ ঘটনায় বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ১১ জন শ্রমিককে পুলিশ আটক করেছে বলে শ্রমিকদের দাবি। এতে রেল চলাচল বিঘিœত হয়েছে।
বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি কবি শাহাজাহান বলেন, বৃষ্টির মধ্যেই তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে তৃতীয় ইউনিটে ১৫৪জন দক্ষ ও অভিজ্ঞ শ্রমিকের নিয়োগের দাবিতে শ্রমিকরা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান ভোর ৬টা থেকে দ্বিতীয় দিনের মতো অবরোধ কর্মসূচি শুরু করে। সকাল ১০টায় পার্বতীপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আবু তাহের মো. সামসুজ্জামান ও ফুলবাড়ী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিয়া মোহাম্মদ আশিষ বিন হাছানের নেত্বত্বে একদল পুলিশ শ্রমিকদের অবস্থানস্থলে উপস্থিত হয়। তারা শ্রমিকদের সাথে আলোচনার করার মুহুর্তে আকস্মিকভাবে পুলিশ শ্রমিকদের ওপর লাঠিচার্জ শুরু করে। পুলিশের লাঠিচার্জের কারণে শ্রমিকদের হাতে থাকা প্লাকার্ডে লাগানো বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ছিঁড়ে যায়। এ সময় পুলিশ আন্দোলনকারি শ্রমিকদের সংগঠন বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদসহ ১০জনকে আটক করেছে। আটক অন্য শ্রমিকরা হলেন আরিফুল ইসলাম, মাজেদুল ইসলাম, মনোয়ার সরকার, আব্দুল আজাদ, মাজেদুল ইসলাম, মমিনুল ইসলাম, গোলাম রব্বানী, জিয়াদুল ইসলাম ও সাহেনুর রহমান। তিনি দাবি করেন, শ্রমিকরা রেলপথ নয়, শুধুমাত্র সড়কপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করছিল।
বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র আন্দোলন পরিচালনা কমিটির উদেষ্টা শ্রমিক নেতা এসএম নূরুজ্জামান জামান বলেন, আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে আটক শ্রমিকদের মুক্তি দেওয়া না হলে কঠোর আন্দোলন সংগ্রম গড়ে তোলা হবে।
ফুলবাড়ী রেলস্টেশনের স্টেশন মাস্টার ইসরাফিল সোহাগ বলেন, রাজশাহী থেকে চিলাহাটিগামী ৭৩৩ আপ আন্তঃনগর তিঁতুমীর এক্সপ্রেস ট্রেনটি ফুলবাড়ী রেলস্টেশনে বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে পৌঁছলেও অবরোধের কারণে ৪০ মিনিট পর বেলা ১২ টা ৫ মিনিটে পার্বতীপুর অভিমুখে ছেড়ে যায়।
উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আবু তাহের মো. সামসুজ্জামান বলেন, শ্রমকরা সড়কেও ওপর অবস্থান নিয়ে অবরোধ কর্মসূচি শুরু করায় সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধসহ যানজটের সৃষ্টি হয় সড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রাখতে শ্রমিকদেরকে সড়ক থেকে সরে যেতে বলা হয়। কিন্তু তারা সেটি না করায় বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ছিঁড়ে গলায় ঝুঁলিয়ে বিক্ষোভা প্রদর্শন শুরু করায় তাদের ওপর পুলিশকে লাঠি চার্জের নিদের্শ দেওয়া হয়।
ফুলবাড়ী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিয়া মোহাম্মদ আশিষ বিন হাছান বলেন, শ্রমিকরা সড়ক অবরোধের পাশাপাশি রেললাইনের ওপর লাল পতাকা লাগিয়ে রেল চলাচল বন্ধ করার অপচেষ্টা চালালে রেললাইন থেকে পুলিশ লাল পতাকা সরিয়ে দিয়ে অবরোধ তুলে নেওয়ার জন্য বলা হয়। কিন্তু শ্রমিকরা সেটি না করে পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি শুরু করে। এ কারণে বাধ্য হয়ে পুলিশ শ্রমিকদের ওপর লাঠিচার্জসহ ৮ থেকে ৯ জনকে আটক করেছে। অবরোধকারিদের কারণে ট্রেনের স্বাভাবিক চলাচল বিঘিœত হয়েছে। #

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.