স্লীপ’র টাকা সভাপতি সহি জাল করে টাকা উত্তোলন করার অভিযোগ

বাজিতপুর কিশোরগঞ্জ সংবাদদাতা;
কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার মির্জাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল ফজল ২০১৮-২০১৯অর্থ বছরের স্লীপ কার্যক্রমে পঞ্চাশ হাজার টাকা সভাপতির সহি জাল করে ৩০ জুনের মধ্যে উত্তোলন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা যায়, প্রধান শিক্ষক আবুল ফজল এ টাকা উত্তোলন করে স্কুল কমিটির সভাপতি মোছাঃ আনোয়ারা কে না জানিয়ে আত্মসাৎ করার পায় তারা চালিয়ে আসছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। তখন সভাপতি ও তার কমিটির অন্য সদস্যরা জানতে পেরে কিশোরগঞ্জ-০৫ আসনের সদস্য আলহাজ মোঃ আফজাল হোসেনকে বিষয়টি জানালে তিনি আইন গত বিষয়ে পরামর্শ দেন। পরে স্কুল কমিটির সভাপতি ও অন্যান্য সদস্যরা উপজেলা শিক্ষা অফিসারের বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তখন উপজেলার শিক্ষা অফিসার মোঃ আফজাল হোসেন তদন্ত প্রতিবেদনে প্রধান শিক্ষক তার কমিটির সভাপতির সহি জাল করে টাকা উত্তোলন করার সত্যতা খুজে পান। এ বিষয়ে মির্জাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল ফজল কে বার বার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। বাজিতপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আফজাল হোসেন বলেন স্লীপ কার্যক্রমের টাকা প্রধান শিক্ষক সভাপতি সহি জাল করেছেন বলে তদন্তে সত্যতা স্বীকার করেন।
কটিয়াদী সহ কিশোরগঞ্জের ৮ পৌরসভার সহ¯্রাধিক কর্মকর্তা কর্মচারী দেড় বছর ধরে বেতন পাচ্ছেননা, পরিবার নিয়ে মানবিক জীবন যাপন
মহিউদ্দিন লিটন, বাজিতপুর সংবাদদাতা
বিগত ১ ও ২ জুলাই সফল ভাবে কর্মবিরতি সহ মানববন্দন কর্মসূচী পালন করে আসছে কটিয়াদী সহ কিশোরগঞ্জের ৮টি পৌরসভার সহ¯্রাধিক কর্মকর্তা কর্মচারী। তারা দেড় বছর ধরে বেতন না পাওয়ার কারণে পরিবার পরিজন নিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে জীবন যাপন করছেন বলে জানা গেছে। জানা যায় এ কর্মসূচী বাস্তবায়নে কটিয়াদী পৌরসভার মেয়র শওকত ওসমান একাত্ততা ঘোষণা করেছেন। তিনি বলেন রাষ্ট্রীয় কোষাঘার হতে বেতন ভাতাদি, পেনশন প্রতা চালু যৌক্তিক। বাংলাদেশ সরকারের প্রধান মন্ত্রীর বঙ্গ বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দাবীটি বাস্তবায়নের জন্য জোড় দাবি জানাচ্ছি। এছাড়া রাজস্ব সংকটের কারণে বেতন ভাতাদি প্রধান না করার কারনে এ সব পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীরা এখন খুব কষ্টে আছেন। কটিয়াদী সার্ভিস এসোসিয়েশন সভাপতি সালাহউদ্দিন, সাধারন সম্পাদক আঃকুদ্দুছ বলেন রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে বেতন ভাতা প্রধান করা হলে তাদের পরিবারের সদস্যদের সুদিন ফিরে আসবে। সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম নজরুল ইসলাম বলেন দীর্ঘ তিন বছর ধরে রাষ্ট্রীয় কোষাগার হতে বেতন না পাওয়ার কারণে অনিশ্চয়তার মধ্যে আছেন। সারা দেশের ন্যায় কটিয়াদী পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীরা মানবিক জীবন যাপন করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.