আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কর্মতৎপরতায় পাল্টে গেছে আত্রাইয়ের দৃশ্যপট

আত্রাই (নওগাঁ)প্রতিনিধি ; নওগাঁর আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ছানাউল ইসলাম ২০১৮ সালের ১৮ জুলাই যোগদান করেন। ইউএনও হিসেবে আত্রাই উপজেলায় যোগদানের পর থেকে গত ১ বছরে উপজেলার অধিকাংশ অফিস থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যায়ের দুর্নীতি অনেকাংশেই কমে যায়। সেই সাথে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের কাজের স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনার জন্য জনপ্রতিনিধিদের উন্নয়ন কর্মকান্ডে অংশগ্রহনমূলক বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন তিনি ।

আত্রাই উপজেলা পরিষদ চত্বরে নিয়মিত পরিস্কার পরিছন্নতা কার্যক্রম পরিচালিত হয়।উপজেলা পরিষদের গাছে যে ব্যানার পোস্টার ছিলো তা সরিয়ে আলাদ স্থানে লাগানের জায়গা করা হয়েছে ।উপজেলার সকল অফিসের সেবার ব্যাপারে একটি “সেন্টাল হেল্প ডেস্ক” স্হাপন করেন তিনি যার মাধ্যমে একই স্থান থেকে সকল কিছুর পরামর্শ পাচ্ছে উপজেলা বাসী। এছাড়া সেবা প্রার্থীদের বসার সুন্দর ব্যবস্থা,বিশুদ্ধ খাবার ও টয়লেট সুবিধা নিশ্চিত করেছেন এই সদা হাস্যময়, প্রাণচাঞ্চল্যে ভরপুর, মেধাবী, প্রজ্ঞাবান, যোগ্যতা, দক্ষতা, সততা ও অসীম ধীশক্তির অধিকারী সুদর্শন অফিসার মোঃ ছানাউল ইসলাম । তিনি কৃষি জরিপকর্মীদের দিয়ে উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ মোবাইল ফোন নম্বর সম্বলিত স্টিকার দরজায় টাঙ্গানেরা একটি ব্যতিক্রমী কাজ করেছেন।উপজেলা পরিষদ চত্বর ও নিজ অফিসের প্রত্যেকটি ডেস্ক ও সহকারী কমিশনারের কার্যালয় (ভূমি)সিসি ক্যামেরার আওতায় এনে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকেছেন তিনি।
উপজেলা পরিষদের সম্প্রসারিত প্রশাসনিক ভবনের সামনে মুক্তিযুদ্ধের ভাসকর্য ও গাড়ি পারকিং এর কাজ এগিয়ে চলছে। তিনি কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে “বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্ণার” এবং মানবতার দেয়াল স্থাপনে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন। পরিষদ চত্বরের পতিত জায়গায় বিভিন্ন বৃক্ষ ফুল ফল ও সবজি চাষ করা হচ্ছে। আত্রাই উপজেলার সকল অফিসের লে-আউট সম্বলিত সাইনবোর্ড টাঙ্গানো, সৌন্দর্য বদ্ধনসহ এক কথায় উপজেলার আমুল পরিবর্তনের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ ছানাউল ইসলাম । সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন,এসডিজি বাস্তবায়নের জন্য এবং উপজেলার উন্নয়ন কাজে সহযোগিতা ও পরামর্ম প্রদানের জন্য তিনি “আইসিটি ডেভেলপমেন্ট ফোরাম”, “সোসাল ইনোভেশন টিম”সহ বিভিন্ন প্লাটফরম তৈরী করেছেন যার মাধ্যমে সরকারের নির্বাচনী অংগীকার তথা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে অত্যন্ত সহায়ক হবে বলে উপজেলা বাসীর বিশ্বাস।

এছাড়া বাল্যবিবাহ রোধ, উপজেলার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলার বিষয়ে নজর রাখা, দুঃস্থ ও প্রকৃত কৃষকদের মাঝে সার ও বীজ বন্টন, বিভিন্ন বোরো আবাদে পানির সঠিক বন্টন, কৃষকদের নিকট সরকারী মূল্যে সরাসরি ধান ক্রয়, ভূমি সংক্রান্ত বিষয়ে প্রকৃত ভূমিহীনদের মধ্যে খাস জমি বন্টন, ভূমি বিষয়ে নামজারিতে স্বচ্ছতা, অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ এবং মাদক বিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহন করেন। বিশেষ করে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও হত দরিদ্রদের প্রতি সুদৃষ্টি রেখে কাজ করে যাচ্ছেন। তার উদ্যেগেই নওগাঁর ১১ টি উপজেলার মধ্যে সর্বপ্রথম আত্রাই উপজেলা বাল্যবিবাহ মুক্ত উপজেলা হিসেবে ঘোষনা করতে যাচ্ছেন তিনি। এরই মধ্যে তিনি শতাধিক বাল্যবিবাহ বন্ধ করছেন। তিনি নিজেই উপস্থিত থেকে বেশ কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করছেন। এর মধ্য দিয়ে বর্তমানে অনেকাংশই আত্রাই উপজেলায় মাদক নিয়ন্ত্রনে এসেছে। ইতোমধ্যেই আত্রাই উপজেলায় বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন তিনি। আত্রাই উপজেলার বিভিন্ন অফিস ও বাজার গ্রামের একেবারেই দরিদ্র জনগোষ্ঠীদের কাছে সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, বর্তমান সুযোগ্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ছানাউল ইসলাম এর মত সৎ ও যোগ্য নির্বাহী অফিসার দীর্ঘদিন তার কর্মস্থলে থাকলে অনেকটাই আত্রাই এর সার্বিক অবস্থা পাল্টে যাবে। এরই ধারাবাহিকতা পরবর্তীতেও কার্যক্রম একইভাবে চলবে বলে এলাকাবাসীর মন্তব্য। উপজেলা পর্যায়ে একজন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা যদি সৎ থাকে তবেই মানুষের ও সমাজ থেকে দুর্নীতিমুক্তসহ পাল্টে যেতে পারে গোটা প্রশাসনিক ব্যবস্থার সার্বিক চিত্র। ইতোমধ্যেই বিভিন্ন অফিস সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, অনিয়ম, ঘুষ, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি অনেকাংশেই কমে গেছে। বেঁচে গেছে এলাকার জনসাধারণ। অনেকেই ইউএনওর নিকট সরাসরি গিয়ে কাজ করে নিতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করেছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউপি চেয়ারম্যানদের কর্মকান্ডে উপর সু-নজর রেখে টি,আর ও কাবিখা প্রকল্পগুলো সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করে নেন। এতে এলাকাবাসী তার প্রতি সন্তুষ্ট হয়েছেন। এছাড়াও উপজেলার হাটবাজারের উন্নয়ন, সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী কৃষকদের নিকট সরাসরি ধান ক্রয় নিকট চাল ক্রয়ে তিনি গুরুত্ব¡পূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন যা কৃষকেরা জানিয়েছেন। ইতোমধ্যেই ভেজাল খাদ্যের উপর ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ব্যবসায়ীদের জরিমানা আদায় করায় অধিকাংশ হোটেল রেস্তেরাঁগুলোতে নিম্নমানের খাদ্যদ্রব্য বিক্রি বন্ধ হয়ে গেছে। এতে আত্রাইতে ভেজাল খাদ্য অনেকাংশেই নেই বললেই চলে।
বান্দাইখাড়া টেকনিক্যাল অ্যন্ড বিএম কলেজের অধ্যক্ষ ও প্রজন্মের আলো সম্পাদক আব্দুর রহমান রিজভী জানান, সরকারি দায়িত্বের বাইরেও বর্তমান এউএনও মহোদয় বিভিন্ন অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করে থাকেন। তাঁর অফিসে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ নির্ভয়ে যাতায়াত করে সমস্যার সমাধান পাচ্ছেন যা অত্যন্ত আশা ব্যঞ্জক।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জনবান্ধব প্রশাসনের উৎকৃষ্ট উদাহরণ বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ ছানাউল ইসলাম ।

আত্রাই প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন সেন্টু জানান, কিছু কিছু সরকারি প্রজেক্টগুলোতে অনেক রকম দুর্নীতি হয়, বরাদ্দের টাকা নিয়ে নয়ছয় করে অনেকেই যে পরিমাণ বরাদ্দ আসে, তার সিকি ভাগও সাধারণ মানুষ পায় না। তার উদ্যোগের কারনে সরকারি টাকার সদ্ব্যবহারের ব্যাপারটাও প্রশংসিত হচ্ছে এলাকায়।

সরকারের সুদৃষ্টি আর স্থানীয় সাংসদ ইসরাফিল আলম এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ এবাদুর রহমান এবাদ সাহেবের দিকনির্দেশনায় ইউএনও সংশ্লিষ্ট কাজের তদারকি করছেন।

আত্রাই উপজেলার ইউএনও মোঃ ছানাউল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে দরিদ্র মানুষকে ঘর করে দিচ্ছেন। তার মহৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করায় আমার কাজ। ইউএনও বলেন, আমি নিজেকে জনগণের সেবক মনে করি। আমার দপ্তর মানুষের সেবায় নিয়োজিত সবসময়। আমি হয়তো একদিন থাকব না, মানুষ আমার ভালো কাজটাকে সারাজীবন মনে রাখবে।

আত্রাই উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ ছানাউল ইসলাম ৩০তম ব্যাচের বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা। তিনি এর পূর্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রোজেক্টে অত্যন্ত দক্ষতা, পেশাদারিত্ব ও সুনামের সঙ্গে তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তার জন্ম জয়পুরহাট জেলায়। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশুনা শেষ করে সিভিল সার্ভিসে যোগ দেন । তিনি ব্যাক্তিগত জীবনে বিবাহিত এবং এক সন্তানের জনক।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ছানাউল ইসলাম রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.