পূর্বধলায় কর্মরত সাংবাদিকদের মধ্যে ক্ষোভ চরমে!

সাদ্দাম হোসেন, পূর্বধলা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি:
নেত্রকোণার পূর্বধলায় কর্মরত সাংবাদিকের নিয়ে দ্বন্ধের প্রকৃত রহস্য বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। এনিয়ে সাংবাদিকদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। পূর্বধলা প্রেসক্লাবের বিগত দিনগুলোর কর্মকান্ড পর্যালোচনায় উপজেলাবাসীর অজানা এসব কাহিনী বেরিয়ে এসেছে। সিন্ডিকেট সাংবাদিকতা, কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় একই চক্র ও গোষ্ঠীর মাধ্যমে দীর্ঘদিন ক্ষমতা কুক্ষিগত, প্রেসক্লাবকে ব্যবহার করে ক্ষমতার প্রভাব, প্রকৃত সাংবাদিকদের সদস্য পদ বঞ্চিত, গঠনতন্ত্র বিরোধী কার্যক্রম। এসব বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে পূর্বধলায় কমরত সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভের দানা বাঁধতে থাকে। এরই ধারাবাহিক ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ১৭ জুলাই পূর্বধলা উপজেলা মৎস্য অফিসের সাংবাদিক সম্মেলনের ঘটনা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বুধবার (১৭ জুলাই) জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৯ উপলক্ষে উপজেলা মৎস্য অফিসের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তে মৎস্য কর্মকর্তা সুতপা ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে মাত্র ৫ জন সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন। তারা হলেন- পূর্বধলা প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুল আলম শাহীন, সাধারন সম্পাদক শফিকুজ্জামান শফিক, আজকের আরবান ডটকমের সম্পাদক সৈয়দ আরিফুজ্জামান, যায়যায়দিন পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি মো. জায়েজুল ইসলাম, দৈনিক আজকের বাংলাদেশ প্রতিনিধি মো. শাখাওয়াত হোসেন শিমুল।

পূর্বধলা প্রেসক্লাব, পূর্বধলা উপজেলা প্রেসক্লাব, ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন, সাংবাদিক ফোরামসহ বিভিন্ন সংবাদপত্র ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে ৩৫/৪০জন সাংবাদিক কর্মরত আছেন। তবে কিভাবে মাত্র ৫ সাংবাদিকদের নিয়ে মৎস্য অফিস সংবাদ সম্মেলন করেছেন। কর্তৃপক্ষের এমন উদাসীন ও দায়সারা আচরণে স্থানীয় সাংবাদিকরা হতবাক হয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুতপা ভট্টাচার্যের কাছে এর কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুল আলম শাহীন সাহেব কে কয়েকজন সাংবাদিক নিয়ে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছিল। আমিও অবাক হয়েছি মাত্র ৫ জন সাংবাদিকের উপস্থিতি দেখে। যেহেতু সাংবাদিকদের সাথে সম্মেলন সেহেতু সাংবাদিক উপস্থিতিটা আরো বেশি হওয়ার প্রয়োজন ছিল।

প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুল আলম শাহীন বলেন, আমাদের ৫ সাংবাদিকদের দাওয়াত দিয়েছে তাই আমরা ৫ জনই অংশগ্রহন করি। প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শফিকুজ্জামান বলেন, ৫ জনের কথা বললে তিনি তার পছন্দসই ৫ সাংবাদিককে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করছেন।

কয়েকজন সাংবাদিকদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, সভাপতি শফিকুল আলম শাহীন নিজেই ক্ষমতা অপব্যবহার করে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রেসক্লাবের দাওয়াতপত্র আসলে তিনি তার পছন্দসই লোকদের নিয়ে অংশগ্রহণ করেন আবার কখনও কখনও এককভাবে অংশগ্রহন করেন বলে অনেকের ধারণা।

পূর্বধলা উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি নূরুল ইসলাম বলেন, আমি জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৯ উদযাপনের প্রস্তুতি সভায় কোন দাওয়াত পাইনি। শফিকুল ইসলাম শাহীন সাহেব আমাকে এ বিষয়ে কিছুই বলেননি। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আমার সংগঠনের কাউকেই দাওয়াত দেওয়া হয়নি। যদিও আমি আমার পারিবারিক কারণে পূর্বধলায় বেশি থাকিনা ফোনেও আমাকে অবগত করা যেত।

সাংবাদিক জুলফিকার আলী শাহীন, ইসমাঈল হোসেন খোকন, গোলাম মোস্তফা, নোমান শাহরিয়ার, এমদাদুল ইসলাম, সাদ্দাম হোসেন, আল মুনসুর, মোস্তাক আহমেদ খান, আনোয়ার হোসেন, শেখ সাদী মাসুম প্রমুখ সাংবাদিকগণ বলেন তারা কিছুই জানেনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.