টাকার অভাবে মেডিকেলের কোচিং বন্ধ ঝিনাইদহের খালেদুরের

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি॥
দারিদ্রতা জয় করে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ অর্জন করা খালেদুর রহমানের উচ্চ শিক্ষার পথে এখন দারদ্রিতায় বড় বাধা। তার ভবিষ্যাত এখন অন্ধকারে নিমজ্জিত। প্রচন্ড মেধাবী খালেদুর টাকার অভাবে কোচিং করতে পারছে না। ২০১৭ সালে ছেলেটি যখন ঝিনাইদহ সরকারী বালক বিদ্যালয়ে থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি পরীক্ষায় পাশ করেন তখনও এমন অবস্থায় পড়েছিল। তার ভর্তি ও বই কেনার টাকা ছিল না। ছিল না পোশাক বানানো টাকা। সে সময় ঝিনাইদহ পৌরসভার মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু ও এলাইভ এনজিওর নির্বাহী পরিচালক মেহেদী হাসান মাসুদের আর্থিক সহায়তায় কলেজে পড়ালেখা করে আসছে। এছাড়া কেসি কলেজের অধ্যক্ষ ড. বিএম রেজাউল করিমসহ বিভাগীয় শিক্ষকরাও খালেদুরের পড়ালেখায় সহায়তা প্রদান করেন। এবার এইচএসসি পরীক্ষায় ঝিনাইদহ সরকারী কেসি কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে খালেদুর কৃতিত্বের সাক্ষর রেখেছেন। তার পিতা খায়রুল ইসলাম ২০ বছর ধরে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার লক্ষিপুর হাসানবাগ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ননএমপিও শিক্ষক হিসেবে কর্মরত। বসবাস করেন ঝিনাইদহ শহরের বনানীপাড়ায়। অভাবী পরিবারের খালেদুরই এখন আশার আলো। কিন্তু অর্থের অভাবে তার পড়া লেখা বন্ধ হয়ে যাবে। ২০১১ সালে পঞ্চম শ্রেনীর সমাপনী ও ২০১৪ সালে জেএসসি পরীক্ষায়ও খালেদুর জিপিএ-৫ পেয়েছিল। খলেদুর বর্তমানে ঢাকার রেটিনাতে মেডিকেলের জন্য কোচিং করছেন। তার পড়ালেখার ব্যায়ভার বহনে হতদরিদ্র পিতা খাইরুল ইসলাম অক্ষম। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দেশের বিত্তবানদের প্রতি আর্থিক সহায়তা কামনা করেছেন। খালেদুরের পিতা খাইরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ (বিকাশ) ০১৭২২-৯৫৩৭৭১, ব্যাংক একাউন্ট নং ২২৮১০৭২৫৯৭, ডাচবাংলা ব্যাংক, ঝিনাইদহ শাখা।

শৈলকুপা পৌরসভা এলাকা যেন ময়লার
ভাগাড় দুর্গন্ধে মানুষ অতিষ্ঠ
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি॥
ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভার বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় ময়লা আবর্জনার স্তুপ গড়ে উঠেছে। নিয়মিত পরিস্কার না করায় দুর্গন্ধে মানুষ অতিষ্ঠ। পৌর চেয়ারম্যান কাজী আশরাফুল আজম অবশ্য বলেছেন, কর্মচারীরা আন্দোলনে রয়েছে। চাকরী জাতীয়কারণ না হওয়ায় তারা সব সেবা বন্ধ করে দিয়েছেন। ফলে ময়লা পরিস্কার করা কোন লোকজন নেই। সরেজমিন দেখা গেছে, শৈলকুপার পাড়া মহল্লায় ময়লার স্তুপ গড়ে উঠেছে। মাসের পর মাস দুর্গন্ধযুক্ত আবর্জনা পরিস্কার করা হচ্ছে না। শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের পাশেই রয়েছে একটি ময়লা আবর্জনার স্তুপ। দেখে মনে হচ্ছে মাসে পর মাস ময়লাগুলো সেখানে পড়ে আছে। সেখান থেকে প্রতিনিয়ত দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। দুর্গন্ধ বাতাসে মিশে মানুষের স্বাস্থ্যহানী ঘটছে। মশা মাছির বংশ বিস্তার হচ্ছে। পথচারীদের মুখে রুমাল দিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে। পৌর নাগরিকরা বলছেন তারা পৌরসভার কর ও ট্যক্স পরিশোধ করেন, কিন্তু ভাল সেবা পাচ্ছেন না। হাসপাতাল পাড়ার বাসিন্দা আকমল হোসেন ও নাছির উদ্দীন অভিযোগ করেন, তাদের এলাকার ময়লা আবর্জনা কয়েক মাস ধরে পরিস্কার করা হচ্ছে না। উৎকট গন্ধে বাসা বাড়িতে বসবাস করা মুশকিল হয়ে পড়েছে। মাসের পর মাস পৌর কর্তৃপক্ষ ময়লা সাফ না করায় জনস্বাস্থ্য হুমকীর মুখে পড়েছে। বিষয়টি নিয়ে শৈলকুপা পৌরসভার মেয়র কাজী আশরাফুল আজম জানান, আগে আমাদের ময়লা ফেলা গাড়ি ছিল না। ভ্যান গাড়িতে ময়লা ফেলা হতো। এখন নতুন গাড়ি পেয়েছি কিন্তু ড্রাইভার নেই। তাছাড়া কর্মচারীরা সেবা বন্ধ করে দেওয়ায় ময়লা পরিস্কার করা যাচ্ছে না। তিনি মাসের পর মাস ময়লা পরিস্কার না করা পৌর বাসির অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবী করেন।

ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের প্রচার
সম্পাদক হলেন সজিব
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি॥
ঝিনাইদহ বাস মিনিবাস মালিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মরহুম জাহাঙ্গীর হোসেনের একমাত্র ছেলে তরুন ছাত্র নেতা মোঃ তাহজ্জিবুল মনির সজিব ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক হয়েছেন। প্রচার সম্পাদক করায় তিনি এক বিবৃতিতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রানা হামিদকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। জানা গেছে, সজিবের দাদা পায়রাডাঙ্গা গ্রামের আজিবর মন্ডল ছিলেন হরিণাকুন্ডু উপজেলার কাপাশহাটিয়া ইউনিয়নের একাধিকবার নির্বাচত চেয়ারম্যান। সজিব এর আগে ঝিনাইদহ পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। মোঃ তাহজ্জিবুল মনির সজিব ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক হওয়ায় বিভিন্ন মহল থেকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.