পাকুন্দিয়ায় ব্র‏হ্মপুত্র নদের ভাংঙ্গনে অর্ধশতাদিক বসত বাড়ী বিলিন

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি :কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত ব্র‏হ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় শুরু হয়েছে নদের তীব্র ভাংগন। গত এক সপ্তাহে চরফরাদী ইউনিয়নের দক্ষিণ চরটেকী গ্রামের অর্ধশতাদিক পরিবারের বসত ভিটি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। সরজমিনে দেখা গেছে উপজেলার চরফরাদী ইউনিয়নের ব্র‏‏হ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় দক্ষিণ চরটেকী গ্রামের তীব্র ভাংগন শুরু হয়। সেই সাথে আবাদি জমি, বসত ভিটা বাড়ি ঘর সরানো হচ্ছে। অর্ধশতাদিক বসত বাড়ি দক্ষিণ চরটেকী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মসজিদ, ফুরকানিয়া মাদ্রাসা, কবরস্থান হুমকির মুখে রয়েছে। শনিবার ২৭ জুলাই কথা হয় ঐ এলাকার জনপ্রতিনিদি রেনু মেম্বারের সাথে তিনি বলেন কয়েকদিনের নদী ভাংগনে ঐ গ্রামের হারিছ মিয়া, আওয়াল, সুরুজ মিয়া, তারা মিয়া, হাবিবুল্লাহ, শাহিদ মুন্সী, রশিদ, খুর্শিদ, তোরাবালী, রেনু মেম্বার, গোলাপ মিয়া, বকুল মিয়া, শাহাব উদ্দিন, মালেক, মাসুদ ফিরুজ, মুর্শিদ, জুহুর উদ্দিন, জামাই মুর্শিদ, শহিদ, গোলাপ, শাহাব উদ্দিন, গিয়াস উদ্দিন, কাসেম ও আক্কাস সহ প্রায় ৫০টি পরিবারের বসত ভিটা নদী গর্ভে চলে গেছে। এছাড়াও ৫০টি বসত বাড়ি হুমকির মুখে রয়েছে। নদীর ভাংগন এলাকার গিয়াস উদ্দিন বলেন নদ থেকে প্রতি বছর ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের ফলে নদী ভাংগনের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পাকুন্দিয়া-কটিয়াদী আসনের সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দ্রুত ব্যবস্থার আশ্বাস দেন।

জলবদ্ধতা পাকুন্দিয়ায় ৪টি গ্রামের কৃষি কাজ থেকে বঞ্চিত

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার ৯নং চন্ডিপাশা ইউনিয়নের অর্ন্তগত শৈলজানী, চিলাকাড়া, কোদালিয়া ও কয়ারখালী এই ৪টি গ্রামের জলাবদ্ধতার কারনে কৃষি কাজ থেকে বঞ্চিত। এই ব্যাপারে চার গ্রামের জনগণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগে বলা হয়েছে আমাদের কৃষি জমির উপর দিয়ে আশুতিয়া, খলিশাখালী ও চরপলাশ গ্রামের বৃষ্টির পানি প্রবাহিত হয়ে খালিয়া বাড়ি ব্রীজের নিচ দিয়ে চিলাকাড়া গ্রাম হয়ে পাকুন্দিয়া-কিশোরগঞ্জ রাস্তার নিচ দিয়ে ছোট একটি চুঙ্গা দিয়ে পানি অপসারণ হতে পারে না। এতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ৪টি গ্রামের কৃষকের জমিতে পূর্বে তিনটি ফসল ফলানো হতো। জলাবদ্ধতা থাকার কারনে আমন ধান, সবজি চাষের অনুপযোগী হয়ে পরে। এতে কৃষকরা আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। কালিয়া বাড়ি ব্রীজের পূর্ব পার্শ্বে পানির নালা ভরাট হওয়ায় জমি উচু থাকার কারনে পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। ঐ এলাকার কৃষকের দাবি কিশোরগঞ্জের রাস্তার পার্শ্ব দিয়ে ১ কিঃমিঃ খাল খনন করলেই জলাবদ্ধতা দূরীকরণ হবে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.