নড়াইলে ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছে কামার শিল্পীরা

নড়াইল প্রতিনিধি : নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলায় আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্তসময় পার করছেন কামার শিল্পীরা। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নিরলস ভাবে পশু জবাই এবং মাংস কাটার দা, ছুরি, বটি, চাপাতি, চাকু ইত্যাদি তৈরি এবং মেরামতের জন্য একটানা কাজ করছেন তারা।
কোরবানির পশু জবাই করার উদ্দেশ্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের মাঝে দা, ছুরি, চাকু, বটি ইত্যাদি কেনার ধুম পড়েছে। সাধারণ মানুষ ও কসাইদের ভিড় সেখানে লেগেই আছে। বছরের অন্যান্য সময় কর্মকার সম্প্রদায়ের তেমন কোন কাজ থাকেনা। কোরবানির ঈদের সময় বেড়ে যায় তাদের ব্যস্ততা। নিস্তব্ধ রাতে কানফাটা শব্দে কামার শিল্পীদের এ সরগরম থাকবে ঈদের আগের রাত পর্যন্ত।
উপজেলার লোহাগড়া বাজার, লক্ষীপাশা বাজার, দিঘলিয়া বাজার, ইতনা বাজার, মানিকগঞ্জ বাজার, লাহুড়িয়া বাজার, কলাগাছি বাজার, এড়েন্দা বাজার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে- আগের তুলনায় কামার শিল্পী অনেক কমে গেছে। লোহা ও কয়লার উচ্চ মূল্য হওয়ায় কর্মকারদের তৈরি জিনিস-পত্রের তুলনায় আধুনিক যুগের কোম্পানির রেডিমেড চাকু-ছুরি ইত্যাদি তুলনামূলক সাশ্রয়ী মূল্যে অহরহ বিক্রি হচ্ছে।
উপজেলার লোহাগড়া জামরুলতল এলাকার প্রবাস মন্ডল ও স্বপন কুমার বলেন, বছরের অন্যান্য সময় অলস সময় পার করলেও কোরবানির ঈদে আমাদের বেচা-বিক্রি ও কাজের চাপ বেড়েযায়।
কামাররা আরো জানায়, এ পেশায় অধিক শ্রম জীবিকা নির্বাহে কষ্ঠ হলেও শুধু বাপ- দাদার ঐতিহ্য ধরে রাখতে এ পেশাটিকে তারা এখনও আঁকড়ে ধরে আছেন । বিভিন্ন সময় এসবের চাহিদা কম থাকলেও কুরবানীর পশুর জন্য বেশি প্রয়োজনহ ওয়ায় সকলেই এখন ছুটছেন কামারদের কাছে । আর এতেই একমাসে পেশাটি জম জমাট হয়ে উঠেছে । কামার র্এাই ঈদ মওসুম ছাড়া কাস্তে, হাঁসুয়া, পাসুন, বাশিলা , কুড়ালও তৈরি করে থাকেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.