নিকলী হাসপাতালে ল্যাবে টেকনিশিয়ান নেই ২৫ বছর ধরে

নিকলী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দীর্ঘ পচিঁশ বছর ধরে হাসপাতাল ল্যাবরেটরী টেশনিশিয়ান পদে কোন লোকবল নেই। সেই থেকে হাসপাতালের ল্যাবরেটরীর কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। কোন জনবল না থাকায় হাসপাতাল ভবনে ল্যাবরেটরীর কোন অস্তিত্ব পাওয়া যায় না। সাধারণ পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য উপজেলার রোগীরা দূর্ভোগ পোহাচ্ছে বলে অভিযোগ অনেকের।
সরজমিনে দেখা যায়,অফিস চলাকালীন সময়ে আউটডোর ও ইমারজেন্সী বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের, রোগ নির্ণয়ের জন্য রক্ত, কফ, পশ্রাবসহ বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ডাক্তারা নিদের্শ দিয়ে থাকেন। এসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে হাসপাতালে একসময় ল্যবরেটরীর কার্যক্রম ছিল । এখন হাসপাতালে ল্যাবরেটরী ও লোকববল না’থাকায়, রোগীরা এসব পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য জেলা সদরের সরকারি হাসপাতাল ও বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকগুলোতে যেতে হচ্ছে। যে কারনে জেলা সদরে দিন-দিন রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। স্বল্প সময়ে রোগ নির্ণয়ের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলাবাসী। শুধুমাত্র পরীক্ষার জন্য সহসায় রোগীদের জেলা সদরে রেফার্ড করতে বাধ্য হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। অসহায় রোগীরা প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছে স্থানীয় দালালদের কাছে।
উপজেলার ধীরুয়াইল গ্রামের মোঃ কামাল (৫৫) ও আকিক মিঞা (৫০) সিংপুরের লিয়াজ মিঞা(৫৬) নিকলী সদরের আবুল কাশেম (৫২) জারুইতলা গ্রামের ইন্নছ আলী (৬০) জানায়, আজ থেকে পচিঁশ বছর আগে এই হাসপাতালে একটি ল্যাবরেটরী ছিল । এখানে আমরা রক্তের গ্রুপ, রক্তের ই.এস.আর, মল-মূত্র পরীক্ষা করিয়েছিলাম। এখন এসব পরীক্ষা এই হাসপাতালে করা যায় না। তারা আরও জানায়, ২৫ বছরে দেশ অনেক উন্নত হয়েছে, স্বাস্থ্য সেবার মান ও বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্ত আমরা নিকলীবাসী এসকল সুবিধা থেকে বরাবরই বঞ্চিত হচ্ছি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মচারীর মতে, হাসপাতালের চিকিৎসার ব্যবস্থাপনা এতই নাজুক যে যেখানে নিয়মিত ডাক্তার ই থাকে না সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা তো দূরের কথা, ল্যাব এর যন্ত্রপাতি কোথায় আছে তার কোন হদিস নেই ।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ এ.ডি মাহমুদ আসাদ দৈনিক আমাদের সময়’কে জানান, হাসপাতাল ভবনে কোন ল্যাবরেটরী ছিল কি না তা আমার জানা নাই। ল্যাব এর যন্ত্রপাতি বা উপকরণ আছে কি না তা আমি জানি না। তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার অভাবে আমাদের চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যহৃত হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.