টেন্ডারের দেড় বছরেও রাস্তার কাজ শুরু না হওয়ায় স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তা সংস্কার

প্লাবন শুভ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : টেন্ডারের দেড় বছর পার হয়ে গেলেও রাস্তার কাজ এখনো শুরু হয়নি। ৪০লাখ টাকা ব্যায়ে তিন কিলোমিটার রাস্তার কাজ শুরু না করেই পালিয়ে গেছে বরিশালের মেসার্স শিউলি কন্সট্রাকশনের ঠিকাদার শাহাজান আলী।
দেড় বছরেও রাস্তার কাজ না হওয়ায় গতকাল বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার খয়েরবাড়ী বাজার বয়েস ক্লাবের উদ্যোগে স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তা সংস্কার করলেন এলাকাবাসী।
‘সকলের তরে সকলে আমরা, প্রত্যেকে আমরা পরের তরে’ শীর্ষক প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে রাস্তার পাশ থেকে মাটি কেটে এবং ইট খোয়া বিছিয়ে রাস্তার গর্ত ভরাট করেন ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের মন্ডল, সাবেক চেয়ারম্যান মোজাফ্ফর হোসেন, ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক, সাধারণ সম্পাদক গোষ্ট মহন্ত, খয়েরবাড়ী বাজার বয়েস ক্লাবের সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মো. এরশাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সাহেব ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিনসহ প্রায় শতাধিক এলাকাবাসী।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, রাস্তাটি ২০০৯ সালে নির্মানের পর এখন পর্যন্ত কোনপ্রকার সংস্কার কাজ করা হয়নি। দিনের পর দিন ছোট-বড় বিভিন্ন দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে। দেখার কেউ নেই। রাস্তা টেন্ডার হলেও দেড়বছরে কোনপ্রকার কাজ করেনি ওই ঠিকাদারপ্রতিষ্ঠানটি। এ নিয়ে কয়েক দফায় উপজেলা প্রকৌশলীকে জানানো হলে তিনি বলেন শিঘ্রই কাজ শুরু হবে।
সরেজমিনে দেখা যায়, রাস্তাটি পুরোপুরিভাবে খাল-খন্দকে পরিণত। রাস্তার দু’পার্শ্বেই বিশাল গর্ত। জীবনের ঝুঁকি নিয়েই নিয়মিত চলাচল করতে হচ্ছে তিন ইউনিয়নের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার মানুষকে।
জানা যায়, ২০১৮ সালে ৪০লাখ টাকা ব্যায়ে খয়েরবাড়ী ইউনিয়নের মুক্তারপুর থেকে খয়েরবাড়ী বাজার পর্যন্ত তিন কিলোমিটার রাস্তার টেন্ডার করা হয়। রাস্তার কাজ শুরু না করেই পালিয়ে যায় ঠিকাদারিপ্রতিষ্ঠানটি। পুনটেন্ডারের মাধ্যমে কাজ সম্পাদন করা হবে বলে জানান উপজেলা প্রকৌশলী।
দুর্ঘটনায় পঙ্গুত্ববরণকারি হোটেল শ্রমিক ফনি দাস বলেন, রাস্তাটি খাল-খন্দক হওয়ায় ফুলবাড়ী থেকে আসার পথে অটোরিকশাটি উল্টে খালের মাধ্যে পড়ে যায় এতে তার কোমড়ের হাড় ভেঙ্গে যায়। দীর্ঘ চিকিৎসা করার পরেও ঠিক হয়নি।
ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক বলেন, রাস্তাটি দীর্ঘদিন থেকে সংস্কার না হওয়ায় স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষের চলাচলে বিভিন্ন দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। অনেকে পঙ্গুত্ববরণ করেছেন। ঠিকাদারিপ্রতিষ্ঠানটি কাজ শুরু করলেও কিবা কেনো তারা কাজ ছেড়ে পালিয়ে যায়। এ নিয়ে বেশকিছুবার উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কাজ শুরু আশ্বাস দেন।
ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের মন্ডল বলেন, উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তর থেকে পাওয়া ২লাখ টাকায় গত ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে রাস্তাটির বাধ বাঁধাইসহ রাস্তা রাবিশ দিয়ে গর্ত পূরণ করা হয়েছিল। কিন্তু ভারি যানবাহন চলাচল ও বৃষ্টির কারণে সেগুলো ধুয়ে ও বসে গেছে ফলে আবারো চলাচলের অনুপযোগী হয়ে ওঠেছে। উপজেলা প্রকৌশলী আশ্বাস দিয়েছেন শিঘ্রই কাজ পুনটেন্ডারের মাধ্যমে সম্পাদন করা হবে।
এবিষয়ে ঠিকাদারিপ্রতিষ্ঠানে ঠিকাদার শাহাজান আলীর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি।
উপজেলা প্রকৌশলী শাহিদুজ্জামান বলেন, ২০১৭-১৮অর্থ বছরে প্রায় ৪০লাখ টাকা ব্যায়ে তিনকিলোমিটার কাজের টেন্ডার দেয়া হয় বরিশালের শিউলি কন্সট্রাকশনকে। কিন্তু কাজ শুরু করেই ঠিকাদারিপ্রতিষ্ঠানটি কাজ বন্ধ করে দেয়। পুনটেন্ডার করতে সময় লাগায় কাজটি শুরু করা সম্ভব হয়নি। চলতি বছরেই রাস্তার কাজটি সম্পন্ন করা হবে। #

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.