শ্রীপুরে চাঁদা না পেয়ে বৃদ্ধ পরিবারের ওপর হামলা আহত- ২

শ্রীপুর গাজীপুর থেকে মো: আকতার হোসেন: শ্রীপুরে চাঁদা নিয়েও ফের চাঁদার দাবিকৃত টাকা না পেয়ে এক বৃদ্ধ পরিবারকে দোকান নির্মান করতে দিচ্ছেন না প্রতিপক্ষ লোকজন। ২৪ আগষ্ট শনিবার সকালে বৃদ্ধ পরিবারের উপরে হামলা ও রড সিমেন্ট সহ নির্মানাধিন মালামাল লুট করে নিয়ে গেছেন। এসময় পরিবারের লোকজন বাধা দিলে প্রতিপক্ষের হাতে বৃদ্ধ ও তার স্ত্রী হামলার শিকার হন। বৃদ্ধের পুত্র বাদী হয়ে থানা, গাজীপুর পুলিশ সুপারসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলা কাওরাইদ ইউনিয়নের বাপ্তা গ্রামে বৃদ্ধ কৃষককে একই এলাকার বংশের লোক মো: ফিরুজ আহাম্মেদ, মো: ইব্রাহিম নয়ন, মো: শরিফ আহম্মেদ, মোরাদুল হাসান আরিফ, মো: সুমন মিয়া, মো: ইলিয়াসসহ অজ্ঞাত নামা ১০/১৫ জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বৃদ্ধের নির্মানাধীন কাজে বাধা এবং রড, সিমেন্টসহ নির্মনাধীন মালামাল নিয়া যায়। এ সময় বৃদ্ধ এস.এম.এ আউয়াল ও তার স্ত্রী রেখা আক্তার (৪৫) বাধা দিলে পিটিয়ে মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে বৃদ্ধের পুত্র আশরাফুল আলম বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। বৃদ্ধ জানান, দীর্ঘ ৪০ বছর পূর্বে মৌখিক ভাবে সাহাব বন্টন করিয়া জমি ভোগ দখল করিয়া আসছি। এ মৌসুমে আমি আমন চাষ করিতেছি। জমিতে দোকান ঘর নির্মান করতে গেলে আমার বংশের লোকজন বাধার সৃষ্টি করে আমার অর্থের ক্ষতি চেষ্টা করছেন।
বৃদ্ধের স্ত্রী রেখা জানান, আমার স্বামীর বংশের লোকজন অন্যায় ভাবে জমি বেদখল করার জন্য দোকান ঘর নির্মান কাজে বাধা প্রদান করে। প্রতিপক্ষকে দোকান ঘর নির্মানে বাধা না দেওয়ার জন্য বৃদ্ধের স্ত্রী রেখা আক্তার গোপনে ফিরুজ আহাম্মেদ গংদের এক লক্ষ টাকা চাঁদা দিয়েছে কিন্তু পুনরায় আরো দুই লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। টাকা না দেওয়ার কারণে দোকান ঘর নির্মানে বাধা নিষেধ দেয়। আমরা অসহায় প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করছি।
আশরাফুল আলম রনি জানান, চাঁদা নেওয়ার পরও পুনরায় আমার নিকট দুই লক্ষ টাকা দাবী করে। আমি বাড়ীতে থাকিনা। বাড়ীতে আমার বৃদ্ধা মাতা-পিতা ও ছোট ভাই বসবাস করে। প্রতিপক্ষরা যে কোন সময় আমাদের ক্ষতি করিতে পারে। শ্রীপুর থানার এস.আই নয়ন জানান, তদন্ত স্বাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। অভিযুক্তদের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.