নিকলীতে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু : হাসপাতালে ডাক্তার না থাকায় অভিযোগ

নিকলী(কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ কিশোরগঞ্জের নিকলীতে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে ডাক্তার না থাকায় পানিতে ডুবে যাওয়া এক শিশুর চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।
সরজমিনে জানা যায়,গতকাল মঙ্গলবার উপজেলা সদরের পূর্বগ্রাম জঙ্গিলহাটির মোঃ আবুল কাশেম এর পুত্র রিফাত (০৭) নামের একশিশু পানিতে ডুবে যায়। আশপাশের লোকজন রিফাতকে উদ্ধার করে নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। এ সময় হাসপালের জরুরী বিভাগে কোন ডাক্তার না থাকায়, রিফাতের আতœীয়স্বজনও এলাকাবাসী কর্তব্যরত ডাক্তারকে দিকবেদিক হাসপাতাল এলাকায় খুজঁতে থাকে। দীর্ঘক্ষণ খোঁজাখুঁিজর করেও ডাক্তার না পাওয়াতে শিশু রিফাতের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে মৃতের স্বজন ও এলাকাবাসী। হাসপাতাল এলাকায় রিফাতের মৃত্যু হলে কর্তব্যরত ডাক্তার ও সাব-এসিসন্টেন্ট কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (সাকমো) জরুরী বিভাগে আসলে উৎক্ষিপ্ত এলাকাবাসী বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির মতো ঘটনা ঘটে। বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিকলী থানা পুলিশকে জানালে, হাসপাতাল এলাকায় থানা পুলিশ অবস্থান নেয়। এ সময় কর্তব্যরত ডাক্তার অতিষ দাশ রাজীব বাসায় বিশ্রামে থাকার কথা স্বীকার করেন। সাকমো দিলিপ চন্দ্র দাস, ইমরান হোসেন ও ওয়ার্ড বয় মোঃ বয়ান মিয়া হাতাহাতির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, শিশুটিকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল। যেকারণে আমরা মৃত শিশুর নাম রেজিষ্টার করতে পারিনি।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্তকর্তা ঢাকা অবস্থান করায়, কিশোরগঞ্জ সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ হাবিবুর রহমানকে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি এ প্রতিনিধি কে জানান, নিকলী হাসপাতালে ৩জন ডাক্তার থাকলেও দুইজন ট্রেনিং এর জন্য ঢাকায় রয়েছেন।একজন ডাক্তার দিয়ে চিকিৎসা কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে, তারও ব্যাক্তিগত সুবিধা অসুবিধা থাকতে পারে। সেজন্য কি হাসতাল স্টাফদের মারধর করতে হবে? বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.