মহেশপুরে মেয়ে ও নাতি হত্যার বিচারের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধিঃ মা ও শিশু কন্যা হত্যার আসামী পুলিশ কনস্টেবল আব্দুল আলিমের বিচারের দাবীতে উপজেলার যাদবপুর গ্রামের মৃত শহিদুল ইসলামের স্ত্রী মেহেরুননেছা বৃহস্পতিবার সকালে মহেশপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করে বলেন, তার মেয়ে রিপনা খাতুন(২২) এর সাথে একই গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে পুলিশ কনস্টেবল আব্দুল আলিম(৩০) মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। গত ১০/২/১৮ইং তারিখে আলিম তার কর্মস্থল সাতক্ষীরায় বিয়ের কথা বলে মোবাইলে আমার মেয়ে রিপনা কে যেতে বলে। আমাদের অগোচরে আমার মেয়ে রিপনা তার মেয়ে মুন্নি খাতুন(৪) কে সঙ্গে করে সাতক্ষীরায় নিয়ে যায়। আমার তাকে খুজে না পেয়ে ১২/২/১৮ইং তারিখে মহেশপুর থানায় একটি সাধারন ডায়রি করি। যার নং-৫১১। ঐ দিন সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ থানার সীমান্তের ইছামতি নদীতে মা ও শিশুর মৃতদেহ পুলিশ উদ্ধার করে। লাশ ২টির কোন পরিচয় না পেয়ে পুলিশ বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে সাতক্ষীরা শহরের রসুলপুর কবরস্থানে তাদের দাফন করে। নিহত রিপনার স্বামী মুছা মিয়া ১৪/২/১৮ইং তারিখে পুলিশ কনস্টেবল আব্দুল আলিমকে আসামী করে ঝিনাইদহ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জোড়া হত্যা মামলা দায়ের করে। যার নং-মহেশ-পিং-১৭৪/১৮। পুলিশ জোড়া হত্যা মামলার আসামী আব্দুল আলিমকে আটক করে আদালতে পাঠায়। বর্তমানে সে জামিন পেয়ে মামলার বাদী ও তার পরিবারকে রাতের আধাঁরে মামলা তুলে নিতে বিভিন্ন ধরনে হুমকি দিচ্ছে এবং ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমরা আপনাদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি এবং সুষ্ঠু বিচার দাবী করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.